লিনাক্স ইন্সটল করার পরে যে কয়েকটি অ্যাপ্লিকেশান আপনার ইন্সটল করা প্রয়োজন

মোহাম্মদ রাসেল

আসসালামুআলাইকুম! সবাই কেমন আছেন? ইনশাআল্লাহ ভালোই আছেন, আমিও ভালো আছি ?

  নাহ, এবার প্রতিদিনেের  মতো কাজের কথায় আসি, 
আমাদের অনেক কম মানুষই লিনাক্স ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু যারা  নতুন ব্যবহারকারী বা এখনো ব্যাবয়ার করেননি কিন্তু ব্যবহারের কথা ভাবছেন তারা অনেক সময় অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়। আর এইসব সমস্যার মূল কারণ হলো দরকারী সফটওয়্যার না থাকা। কিন্তু এক্ষেত্রে আমরা কী সফটওয়্যার ব্যবহার করব সেগুলো অনেকেই জানি না। তবে চলুন জেনে নেই লিনাক্স ইন্সটল করার পরে কী কী অ্যাপ্লিকেশান আপনার ইন্সটল করা দরকার।

অভ্র বা বিজয়ঃ হ্যাঁ, যতদুর জানা গেছে লিনাক্সে বাংলা লেখার জন্য অভ্র সবথেকে ভাল। তবে এখানে আপনি চাইলে বিজয় ইউনিকোড বা ইউনিজয় ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু বিজয় ক্লাসিক ব্যবহার করতে পারবেন না।

ফটো এডিটিংঃ আপনি যদি লিনাক্সে কোন ছবিতে শুধু লেখাও ঢোকাতে চান তাহলে আপনার একটা ফটো এডিটিং অ্যাপ্লিকেশান থাকতেই হবে কারণ এখানে ইমেজ ভিউয়ারে কোন ফটো রিটাচিং বা এডিটিং করার সুনিধা নেই। এক্ষেত্রে আপনি গিম্প অথবা ইঙ্কস্পেস ব্যবহার করতে পারেন।

স্ক্রীন রেকর্ডারঃ স্ক্রীন রেকর্ড করার প্রয়োজন প্রায় সবারই হয়। আর তাই আপনি চাইলে স্ক্রীন রেকর্ডার দিয়ে স্ক্রীন রেকর্ড করতে পারেন। তবে আপনি চাইলে ফোন দিয়েও রেকর্ড করতে পারেন কিন্তু এতে রেকর্ডিং হলেও দেখে আরাম পাওয়া যাবে না। আর স্ক্রীন রেকর্ডার হিসেবে আপনি চাইলে ওবিএস স্টুডিও বা ক্যাজাম ব্যবহার করতে পারেন।

গেমিংঃ এটা আপনি চাইলে নাও করতে পারেন। তবে আপনি চাইলে স্টিম ও ডিস্কোর্ড ইন্সটল করে ফেলতে পারেন আপনার লিনাক্স সিস্টেমেও যদি আপনি একজন গেমার হন।

মিডিয়া প্লেয়ারঃ লিনাক্সের নিজস্ব মিডিয়া প্লেয়ার থাকলেও আপনি নিজের সুবিধার্থে অন্য কোন মিডিয়া প্লেয়ার ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে ভিএলসি মিডিয়া প্লেয়ার হতে পারে সেই মিডিয়া প্লেয়ার। এছাড়া নিজের পছন্দের অন্য কোন মিডিয়া প্লেয়ার ব্যবহার করতে পারেন।

ভিডিও এডিটিংঃ ফটো এডিটিং করার পাশাপাশি আপনার মাঝে মধ্যে ভিডিও এডিটিং করার দরকারও হতে পারে। তাই অপেনশট চাইলেই আপনার লিনাক্সে ব্যবহার করতে পারেন।

মিডিয়া কনভার্টারঃ অনেক সময় আমাদের ভিডিও থেকে অডিও বা ভিডিও থেকে ভিডিওতে কোন মিডিয়া ফাইলকে কনভার্ট করতে হতে পারে। আর কনভার্সেশানের জন্য আপনার অবশ্যই দরকার পরবে একটা মিডিয়া কনভার্টারের। আর এর জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন হ্যান্ডব্রেক বা সাউন্ড কনভার্টার।

টেক্সট এডিটরঃ আপনি যদি প্রোগ্রামার বা কোডার হন তাহলে লিনাক্সের জন্য সবথেকে ভাল টেক্সট এডিটর হলো ভিএস কোড। এটা আপনি চাইলেই ব্যবহার করতে পারেন আবার চাইলে অন্য কোন টেক্সট এডিটর ব্যবহার করতে পারেন।

 

উপরিউক্ত অ্যাপ্লিকেশান ছাড়াও আরও অনেক অ্যাপ্লিকেশান আছে যা আপনার কাজে লাগতে পারে। কিন্তু এইগুলো সবথেকে বেশি দরকারী। আর এইসবগুলো উবান্টু(উবুন্টু) ডিস্ট্রিবিউশানের জন্য। তাই অন্য কোন ডিস্ট্রিবিউশানে এইগুলো না থাকতে পারে।

বরাবরের মতো এখানেই শেষ করছি, সবাই ভালো থাকবেন। 

Total
0
Shares
Leave a Reply
Previous Post

এক নজরে দেখে নিন ১৫ হাজার টাকা বাজেটের সেরা ৫টি মোবাইল

Next Post

আপনার ফোনের এই ফিচারই হতে পারে নারীর নিরাপত্তার বড় হাতিয়ার!